1. s.m.amanurrahman@gmail.com : admi2017 :
ভাসানচরে তৃতীয় দফায় আরও ৫ হাজার রোহিঙ্গা যাচ্ছেন - Dailyvision24.com
রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ১১:৩৯ অপরাহ্ন

ভাসানচরে তৃতীয় দফায় আরও ৫ হাজার রোহিঙ্গা যাচ্ছেন

উথিয়া প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২১

আরও ৫ হাজার রোহিঙ্গা তৃতীয় দফায় ভাসানচর যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। বৃহস্পতি ও শুক্রবার (২৮ ও ২৯ জানুয়ারি) চার ভাগে তাদের নিয়ে ক্যাম্প ছাড়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। বৃহস্পতিবার প্রথম ভাগে দুপুরে ক্যাম্প ছেড়েছেন কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফে মানবিক আশ্রয়ে থাকা রোহিঙ্গাদের একটি দল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে প্রথম ১৮টি বাস ভর্তি রোহিঙ্গা ট্রানজিট পয়েন্ট অতিক্রম করে । বিকেলে আরও এক ডজনেরও বেশী বাস রোহিঙ্গা নিয়ে চট্টগ্রামের পথে বের হওয়ার কথা রয়েছে। তবে সংশ্লিষ্ট কেউ এবার এ বিষয়ে কথা বলতে রাজী হয়নি।

পূর্বেকার মতো উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ এলাকা থেকে দিনে দুভাগে ভাগ করে বাসগুলো চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়ার প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। উখিয়ার মূল ক্যাম্প ছাড়াও পুরো ৩৪ ক্যাম্প থেকেই ভাসানচরে যেতে ইচ্ছুক রোহিঙ্গারা ট্রানজিট পয়েন্টে বুধবার বিকেল থেকে আসতে শুরু করে। বাকিরা বৃহস্পতিবার সকাল ও দুপুরে এসে পৌঁছায়। শুক্রবার যারা ভাসানচরে পথে বের হবে তারা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ও শুক্রবার সকাল-দুপুরে ট্রানজিট পয়েন্ট আসবে বলে জানিয়েছেন রোহিঙ্গা নেতারা। দুদিনের যাত্রায় প্রায় ৮০ টি বাস, একাধিক ট্রাক ও প্রয়োজনীয় অন্য যানবাহন প্রস্তূত রয়েছে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ থেকে ছেড়ে যাওয়া বাসে ৩০জন করে রোহিঙ্গা রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত। এসব গাড়ি বহরের আগে ও পেছনে পুলিশের গাড়ি এবং একটি অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এবারেও স্বেচ্ছায় যেতে রাজি হওয়া কমপক্ষে ৫ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে পৌঁছে দেওয়া হবে। বুধবার বিকেল থেকে উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্প থেকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নিয়ে যেতে উখিয়া কলেজ মাঠে অস্থায়ী ট্রানজিট পয়েন্টে রাখা হয়।

নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত ক্যাম্পের মাঝিরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘দু’দফায় ভাসানচরে যাওয়াদের জীবন চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখে এখন অনেকে আগ্রহী হয়ে অপেক্ষা করছে। কিন্তু প্রথম যাত্রার আগে অনেক বুঝিয়েও জড়ো করা কষ্টকর ছিল। এখন চিত্র পাল্টেছে। এখন রোহিঙ্গারা ভাসানচরে যেতে নিজেরাই তালিকায় নাম লিখিয়েছে। ভাসানচরে ৪ ও ২৮ ডিসেম্বর যাদের আত্মীয়স্বজন গেছে, তাদের কাছে সুযোগ-সুবিধার খবর শুনেই অনেকেই এখন সেখানে যেতেে আগ্রহী।

‘প্রথমবার জোর করে গোপনে বিভিন্ন অপপ্রচার থেকে লুকিয়ে তাদের ট্রানজিট ক্যাম্পে আনা হয়েছিল, এখন সেরকম নয়। বিকেলে অনেকেই প্রথম ট্রিপের যাত্রী হতে ক্যাম্পে এসে পড়েছে’ বলে তারা জানিয়েছেন। জানা গেছে, উখিয়া ও টেকনাফের তালিকাভুক্ত (রেজিস্ট্রার) ক্যাম্প ছাড়া বাকি সব ক্যাম্প থেকেই যাচ্ছে রোহিঙ্গারা।

উখিয়ার তাজনিমারখোলা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জনৈক মাঝি নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘আমার ব্লক থেকে বেশ কয়েকটি পরিবার ভাসানচরে যাচ্ছে। তাদের কাউকে জোর করা হয়নি।’

কুতুপালং মধুরছরা ক্যাম্পের সাবেক মাঝি মোহাম্মদ নুর বলেন, ‘এ ক্যাম্প থেকেও ১২টি পরিবার নোয়াখালীর ভাসানচরে যাচ্ছে। প্রথম দফায় যারা গেছে, তাদের কাছ থেকে সুযোগ-সুবিধার খবর জেনেই নতুন করে অনেকেই যেতে আগ্রহী হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘যারা যাচ্ছে তারা বলছেন-মিয়ানমার যে তালবাহানা শুরু করেছে তাতে স্বল্প সময়ে নিজ দেশে ফেরার কোন সম্ভাবনা নেই। সুতরাং আশ্রিত জীবনে বাংলাদেশ সরকার যেখানেই রাখে তাতো একই রকম। সেখানে পাহাড়ি ঝুপড়ির চেয়ে দ্বীপের সুন্দর দালান অনেক উত্তম। ক্যাম্পে একটু জোরে বাতাস হলে চালা উড়ে যাবার ভয়টা অন্তত থাকবে না।’
সংশ্লিষ্ঠ সূত্র মতে, নোয়াখালীর হাতিয়ায় সাগরের মাঝে ভেসে থাকা ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য সব ধরনের সুবিধা সংবলিত ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। ঝড় জলোচ্ছ্বাস থেকে সুরক্ষায় রয়েছে বিশেষ ব্যবস্থাও। বসবাসের যে ব্যবস্থা করা হয়েছে তা দেখতে গত সেপ্টেম্বরে দুই নারীসহ ৪০ রোহিঙ্গা নেতাকে সেখানে নিয়ে যায় সরকার। ভাসানচরের আবাসন ব্যবস্থা দেখে মুগ্ধ হয়ে তারা ক্যাম্পে ফিরে অন্যদের ভাসানচরে যেতে উদ্বুদ্ধ করে। দু’বছর আগে সরকার ভাসানচরে এক লাখ রোহিঙ্গাকে স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু তাদের অনিচ্ছার কারণে তা সম্ভব হচ্ছিল না। অবশেষে এর যাত্রা শুরু হওয়ায় উখিয়া-টেকনাফের সাধারণ মানুষ স্বস্তি প্রকাশ করছেন।

এর আগে গত ৪ ডিসেম্বর প্রথম দফায় এক হাজার ৬৪২ আর দ্বিতীয় দফায় ৪২৮টি পরিবারের এক হাজার ৮০৫ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছে। দুই দফায় স্থানান্তরিত রোহিঙ্গার সংখ্যা এখন ৩ হাজার ৪৪৭। তারও আগে মালয়েশিয়া যেতে গিয়ে সমুদ্র উপকূলে আটক আরও তিন শতাধিক রোহিঙ্গাকে সেখানে নিয়ে রাখা হয়

উল্লেখ্য, ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য যে আবাসস্থল নির্মাণ করা হয়েছে, তা আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসমৃদ্ধ। সব মিলিয়ে কক্সবাজারের চেয়ে ১৮টি উন্নত সুবিধা রয়েছে ভাসানচরে।

প্রশাসনের এক দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, কোনো বলপ্রয়োগ ছাড়াই রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে যাওয়ার ইতিবাচক মনোভাব দেখে তাদের সেখানে পাঠানোর বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেয় সরকার। রোহিঙ্গাদের প্রথম ও দ্বিতীয় দলটিকে নিরাপদে ভাসানচরে পাঠাতে পারায় আরও অনেক পরিবার সেখানে যেতে আগ্রহী হচ্ছে ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
স্বত্ব © ২০২১ ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর
Theme Customized BY NewsFresh.Com
%d bloggers like this: